বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আলফাডাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় হতাহত ১১ পরিবারকে আর্থিক অনুদান প্রদান | ফরিদপুর সংবাদ  ফরিদপুরে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত | ফরিদপুর সংবাদ  সালথায় স্ত্রীর স্বীকৃতির দাবিতে নববধূর অনশন স্বামী পলাতক | ফরিদপুর সংবাদ  ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন | ফরিদপুর সংবাদ  সালথায় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত | ফরিদপুর সংবাদ  সালথায় সংঘর্ষস্থল পরিদর্শনে ফরিদপুরের ডিসি | ফরিদপুর সংবাদ  সালথায় সংঘর্ষ ও ভাংচুরেরস্থান পরিদর্শনে এসপি মোর্শেদ আলম | ফরিদপুর সংবাদ  ফরিদপুর জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত | ফরিদপুর সংবাদ  ফরিদপুরে রেলমন্ত্রী জিল্লুর হাকিমকে সংবর্ধনা ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত | ফরিদপুর সংবাদ  সালথায় সংঘর্ষের ঘটনায় উপজেলা চেয়ারম্যান ওয়াদুদ মাতুব্বর সহ গ্রেপ্তার ৪২ | ফরিদপুর সংবাদ 

ডাঃ মহাসিন উদ্দিন ফকিরের বিরুদ্ধে মাতৃত্বকালীন ভাতার টাকা আত্মসাত করায়, দুদকে অভিযোগ | ফরিদপুর সংবাদ 

নিরঞ্জন মিত্র ( নিরু) ( ফরিদপুর জেলা প্রতিনিধিঃ
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২২
  • ২২৩ Time View

ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গরীব গর্ভবর্তী মাতৃত্বকালীন ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মহাসিন উদ্দিন ফকির ও তার সহযোগী মানষ কুমার দাস এর বিরুদ্ধে।

এই বিষয়ে বঞ্চিত মায়েরা ফরিদপুর দুর্নীতি দমন কমিশন বরাবর ০৩/০১/২০২২ ইং তারিখ একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেন। অভিযোগের নথি ও ভুক্তভোগীদের ভাষ্য মতে জানা গেছে, সরকারের দেয়া গর্ভবতী মায়েদের মাতৃত্বকালীন ভাতা ডিএসএফ প্রজেক্টের অর্থ সারা বাংলাদেশে ১৭ টি সরকারি হাসপাতালের মধ্যে জেলার ভাঙ্গা উপজেলা সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর আওতায় গর্ভবতি মায়েদের জন্য সোনালী ব্যাংক এর অধীন ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং রকেটের মাধ্যমে প্রদান করে থাকে। কিন্তু ডাঃ মহাসিন উদ্দিন ফকির ও তার সহযোগী মানষ কুমার দাস এই টাকার বেশীরভাগ অর্থ আত্মসাত করে আসছেন।

এই ডিএসএফ ফান্ডের কার্যক্রমে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে দেখা যায় যে, মোট ১২৫১ জন মায়েদের তালিকা করে প্রোগ্রাম ম্যানেজার মেটানাল হেলথ এম এন সি এন্ড এ এইচ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মহাখালী ঢাকা বরাবর সুপারিশ করেন ডাক্তার মহাসিন। বরাদ্দকৃত অর্থ সোনালী ব্যাংক ভাঙ্গা শাখা ডিএসএফ নামে দুইটি হিসাব চালু যার হিসাব নং-২০০৩২৩৩০০৪১৯৩ এবং ২০০৩২৩৩০০৪৭৯৬। উক্ত তালিকা অনুযায়ী ভাঙ্গা সোনালী ব্যাংক শাখায় অনলাইনের মাধ্যমে বরাদ্দকৃত অথর্, দুইটি একাউন্টে জমা হয়। এই টাকা ডাঃ মহাসীন উদ্দিন ফকির চেক উত্তোলন করে ডাচবাংলা ব্যাংক (রকেট) মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে মায়েদের দেওয়ার কথা থাকলেও অধিকাংশ গর্ভবতীদের প্রাপ্য টাকা রকেট মোবাইল ব্যাংকিং এ জমা হয়নি বা পাইনি।

এ ছাড়াও গর্ভবতী মায়েদের ডিএসএফ এর বই ফ্রি দেওয়ার কথা থাকলেও প্রতিজনের কাছ থেকে ৩০০ হইতে ৫০০ টাকা করে হতিয়ে নেওয়া সহ টাকার বিনিময়ে ভূয়া সার্টিফিকেট প্রদান করে আসছেন বলে অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

এ ছাড়া ডাঃ মহাসিন উদ্দিন ফকির সরকারী গাড়ী নিয়ে জেলার বাহিরে অনুমতি ছাড়া তার পরিবারের লোক নিয়ে ঘোরাফিরাসহ উপজেলার ঘারুয়া ইউনিয়ন গংগাধরদী গ্রামে শ্বশুর বাড়ীর আত্মীয় স্বজন দিয়ে অনেক দুর্নীতি অনিয়ম পরিচালনা করেন।

হাসপাতালের উন্নয়ন ও বিল্ডিং এর নির্মানের ক্ষেত্রে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে নিজস্ব ঠিকাদার নিয়োগসহ ইউনিয়ন ভিত্তিক স্বাস্থ্য সেন্টার গুলির ঔষধ চুরি করে তার নিজস্ব দালাল দ্বারা বিক্রি করেন বলে অভিযোগ সুত্রে জানা যায়। অফিস চলাকালীন সময় বেসরকারী হাসপাতাল ও প্রাইভেট ক্লিনিকে রোগী দেখার সুবাদে যথাসময় হাসপাতালে উপস্থিত না থেকে দায়িত্বে অবহেলাসহ রোগীদের সাথে খারাপ আচরন করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

অনুসন্ধান রিপোর্টের বক্তব্য জানার জন্য ডাঃ মহাসিন উদ্দিন ফকির এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি সাংবাদিকদেরকে প্রকাশ্যে হুমকি দিয়ে বলেন আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আত্মীয়। আমার বিরুদ্ধে এই দুর্নীতির নিউজ লিখলে কিছুই হবে না বলে হাসাহাসি করেন। তিনি আরোও বলেন এই নিউজ দুই সাংবাদিক করায় তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলা হয়েছে বলে বিভিন্ন ভয়ভিতি দেখান।

এছাড়া তার বাড়ী পার্শ্ববর্তী মাদারীপুর জেলায় হওয়ার কারনে ঐ এলাকার প্রভাবশালী আওয়ামী লীগের নেতা শাহজাহান খান এর নাম ভাঙ্গিয়ে বলেন, আমার সাথে মাননীয় এমপি মহোদয় এর নিয়মিত যোগাযোগ হয়। এ ছাড়াও ভুক্তভোগীদের টাকার বিষয়ে ঐ ডাক্তারের নিকট পুনরায় মুঠোফোনে বক্তব্য জানার চেষ্টা করা হলে বিষয়টি ফরিদপুরের সকল সাংবাদিকবৃন্দ অবগত আছে। উক্ত টাকার ব্যাপারে তার কোন হাত নেই বলে জানান। তিনি আরো বলেন ডাচবাংলা রকেটের মাধ্যমে ভুক্তভোগীরা এ টাকা পেয়ে থাকেন। যদি কেহ না পেয়ে থাকেন আমরা সচিবালয়ে জানাই। তখন সচিবালয় থেকে সমাধান করেন। এই অভিযোগের বিষয়টি নিয়ে আমার উপর দোষ চাপানো হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে ভাঙ্গা উপজেলা সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলন করেছি।

এই দুর্নীতির বিষয়ে নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে ফরিদপুর জেলা সিভিল সাজর্ন ডাঃ সিদ্দিকুর রহমান বলেন, মাতৃত্বকালীন ভাতার টাকা ভুক্তভোগীদের বুঝিয়ে দিয়ে সচিবালয়ে প্রতিবেদন পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। পরে এই বিষয়ে সাংবাদিকদের সামনে ভুক্তভোগীদের কয়েকজনের সাথে তিনি ফোন করে ভাতার টাকা পাওয়ার কথা জিজ্ঞেস করলে। সে সময় একজন টাকা পাওয়ার কথা স্বীকার করলেও মনিরা নামে একজন ভুক্তভোগী তার টাকা পাই নাই বলে জানান। তবে সাংবাদিকদের লেখা লেখিকার মাধ্যমে ডাঃ মহাসিন উদ্দিন ফকির টাকা দিবে বলে জানান। এ ছাড়াও কয়েকটি নাম্বারে কল দিয়ে তাদের পাওয়া যায়নি মর্মে সিভিল সার্জন দায় এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
error: Content is protected !!

Advertise

Ads

Address

Office : Room#1002, Kanaipur, Faridpur, Dhaka. Mobile : 01719-609027, Email : faridpursangbad.com
© All rights reserved 2020. Faridpur Sangbad

Design & Developed By: JM IT SOLUTION